ওমানের মাঠে খেলা হলেও গ্যালারিতে দাপট ছিল বাংলাদেশের দর্শকদের। লাল-সবুজের সমর্থকরা প্রিয় দলের জন্য গলা ফাটিয়েছে। মাসকটের আল আমেরাত স্টেডিয়ামের বাইরেও অবস্থান নেয় প্রবাসী বাংলাদেশিরা। একটা সময় মনে হচ্ছিল ওমান নয় বাংলাদেশই টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের স্বাগতিক।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) ওমানের বিপক্ষে ২৬ রানে জিতেছে মাহমদ উল্লাহ নেতৃত্বাধীন দলটি। ব্যাট-বলে সাকিব আল হাসানের নৈপূণ্যে সুপাল টুয়েলভে যাওয়ার আসা টিকিয়ে রেখেছে টাইগাররা।

২৯ বলে ৪২ রান ও ২৮ রানে খরচ করে তিন উইকেট তুলেছেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার। হয়েছেন ম্যাচ সেরাও।

আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হয়েছিলেন সাকিব। এসময় সমর্থকদের ধন্যবাদ জানান।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ভারত ও পাকিস্তান ছাড়া বিশ্বের সব জায়গায় দর্শকদের এমন সমর্থন পাই। পরিস্থিতি যেমনই হোক সমর্থকরা আমাদের পক্ষেই থাকেন। তাদের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ। আশাকরি সবসময়ই তারা আমাদের এমন সমর্থন দিয়ে যাবে।’

স্কটল্যান্ডের কাছে ছয় রানে হেরে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ যাত্রা শুরু হয়। ওমানের বিপক্ষেও একটা সময় ম্যাচ থেকে ছিটকে যাচ্ছিল সাকিবরা। যদিও শেষ পর্যন্ত ফল নিজেদের পক্ষেই রাখতে পেরেছে টাইগাররা। আইসিসির সহযোগী দেশগুলোর প্রশংসা করেছেন সাকিব।

‘যারা সহযোগী দেশ। তাদের অনেক প্রতিকূলতার মাঝে খেলতে হয়। এত ভালো ক্রিকেট খেলছে তার জন্য তাদের প্রশংসা করতেই হয়। টি-টোয়েন্টিতে কেউই ফেবারিট না। ছোট ফরম্যাট একজন দুই-জন খেলাটা পরিবর্তন চেঞ্জ করতে পারে। মমেন্টাম ধরতে পারলে জয়ের জন বড় ভূমিকা রাখতে পারে। সেখান থেকে চিন্তা করলে কেউ ফেবারিট সেটা বলা ঠিক হবে না। আমরা টেস্ট খেলুড়ে দল। আপনাদের এক্সপেকটেশন থাকবে যাতে আমরা জিতি। আমরাও এমনটা চাই। তবে এটা সব সময় সম্ভব হয় না। বড় দলগুলোর সঙ্গে আমরাও যখন জিতি। তারাও হয়তো এমন চিন্তা করে। ক্রিকেট খেলাটাই আসলে এমন।’