স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ও লাইন ডিরেক্টর অধ্যাপক ডা. রোবেদ আমিন জানিয়েছেন, সারাদেশে আপাতত লকডাউন নয়। তবে করোনাভাইরাসের পরিস্থিতি যদি নাজুক হয় এবং প্রতিটি জেলায় যদি সংক্রমণ ২০ শতাংশের ওপরে চলে যায়, তাহলে লকডাউনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ।

বুধবার (২৩ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের আয়োজিত নিয়মিত করোনা বুলেটিনে এ তথ্য জানান তিনি।

ডা. রোবেদ আমিন বলেন, দেশে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে রাজধানীর পার্শ্ববর্তী সাতটি জেলায় লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার।

তিনি বলেন, আমরা আপাতত ঢাকার পার্শ্ববর্তী ৭ জেলার সংক্রমণ পরিস্থিতি দেখছি। যদি সেগুলোকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারি এবং ঢাকার পরিস্থিতি নাজুক হয় তাহলে শুরুতে ঢাকাকে লকডাউনের বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এছাড়া যদি ঢাকা এবং পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোর করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করা যায় তাহলে সারাদেশে লকডাউনের কোনো প্রয়োজন হবে বলে মনে করি না।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের পাবলিক হেলথ অ্যাডভাইজারি কমিটির সদস্য ও জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ড. আবু জামিল ফয়সাল বলেন, ঢাকায় হয়তো লকডাউনের দরকার নেই, কিন্তু খুবই কড়া বিধিনিষেধ আরোপ করা উচিত। যেমন-সন্ধ্যার পর সবধরনের যান চলাচল বন্ধ করা; রেস্টুরেন্ট, টি-স্টলসহ বিভিন্ন স্থানের আড্ডা বন্ধ করা; একইসঙ্গে কনভেনশন সেন্টারগুলোতে বিয়ে থেকে শুরু করে যত ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন হয়, তা আপাতত স্থগিত করা।

গতকাল মঙ্গলবার (২২জুন) সাতটি জেলায় সকাল ৬টা থেকে লকডাউন শুরু হয়েছে। আগামী ৩০ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত এ আদেশ কার্যকর থাকবে।

লকডাউনের আওতাভুক্ত জেলাগুলো হলো- মানিকগঞ্জ, মুন্সিগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ, গাজীপুর, রাজবাড়ী, মাদারীপুর ও গোপালগঞ্জ।