স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, শুধু সামনের চাকায় ব্রেক, পেছনের চাকায় কোনো ব্রেক নেই, ব্যবস্থা থাকলেও তা অপ্রতুল। সেগুলো যখন ব্রেক করে যাত্রীসহ গাড়ি উল্টে যায়। এ ধরনের দৃশ্য আমরা দেখেছি।

শুধু প্যাডেলচালিত রিকশা-ভ্যানের মোটর বা ব্যাটারি খুলে ফেলার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। বুধবার (২৩ জুন) এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত রোববার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সড়ক পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা জোরদারকরণ এবং দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে গঠিত টাস্কফোর্সের তৃতীয় সভায় সড়ক-মহাসড়কে দুর্ঘটনা প্রতিরোধে যেসব প্যাডেলচালিত রিকশা ও ভ্যানে মোটরযন্ত্র লাগানো হয়েছে, শুধু সেসব রিকশা ও ভ্যান থেকে মোটরযন্ত্র খুলে ফেলার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

এর আগে গত ২০ জুন সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সড়ক পরিবহন সেক্টরে শৃঙ্খলা জোরদারকরণ এবং দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে গঠিত কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়নের জন্য টাস্কফোর্সের সভায় সিদ্ধান্ত হয়, মোটর বা ব্যাটারিচালিত রিকশা বন্ধ করে দেওয়া হবে।

ওই দিন সভার সিদ্ধান্ত তুলে ধরে টাস্কফোর্সের প্রধান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের বলেছিলেন, আমরা লক্ষ্য করেছি সারা দেশে রিকশা-ভ্যানের মধ্যে মোটর লাগিয়ে রাস্তায় চলছে। শুধু সামনের চাকায় ব্রেক, পেছনের চাকায় কোনো ব্রেক নেই, ব্যবস্থা থাকলেও তা অপ্রতুল। সেগুলো যখন ব্রেক করে যাত্রীসহ গাড়ি উল্টে যায়। এ ধরনের দৃশ্য আমরা দেখেছি।

মন্ত্রী আরও বলেন, আমরা দেখেছি হাইওয়েগুলোতেও এই রিকশা চলে আসছে। এজন্য সারা দেশে এ ধরনের রিকশা…প্যাডেলচালিত রিকশার বিষয়ে বলছি না। প্যাডেলচালিত রিকশাকে যারা ইঞ্জিন দিয়ে রূপান্তর করেছেন, সেসব রিকশা-ভ্যান বন্ধ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।